মূল Insync (উদ্ভট বাংলা টিপস) স্মার্টফোন নেশার হাত থেকে মুক্তির পথ

স্মার্টফোন নেশার হাত থেকে মুক্তির পথ

স্মার্টফোন নেশার হাত থেকে মুক্তির পথ

স্মার্টফোন আমাদের জীবনের অনেকটাই দখল করে নিয়েছে। ফেসবুক, ট্যুইটার, ইনস্টাগ্রামের মতো সোশ্যাল মিডিয়া তো রয়েইছে, এখন তার সঙ্গে রয়েছে অনলাইন স্ট্রিমিং পোর্টালও। এগুলোর ভালো দিক যেমন আছে, তেমনই রয়েছে ক্ষতির দিকও। যার মধ্যে অন্যতম আশপাশের পরিবেশ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ার আশঙ্কা।

তাই অনেক বিশেষজ্ঞই পরামর্শ দিচ্ছেন, স্মার্টফোনের নেশা কাটিয়ে ফেলে, তাকে নিয়ন্ত্রণের মধ্যে ব্যবহারের কথা। কিন্তু এই নেশা কাটিয়ে ফেলা সহজ কথা নয়। চারপাঁচটা সোশ্যাল নেটওয়ার্ক ঘুরে ফোনের স্ক্রিন বন্ধ করতে গিয়েই হয়তো আপনার মনে হল, আজকের আবহাওয়া কেমন যাবে, দেখবেন। অমনি কোনও সোশ্যাল নেটওয়ার্ক থেকে নোটিফিকেশন চলে এল। কী আছে সেই নোটিফিকেশনে দেখতে গিয়ে আপনি আবার সেই স্মার্টফোনের নেশায় আবদ্ধ হয়ে পড়লেন। কিন্তু কয়েকটি পদ্ধতি মাথায় রাখলে এর থেকে বেরনো সম্ভব।

১। নোটিফিকেশন বন্ধ

১। নোটিফিকেশন বন্ধ

যতগুলো সম্ভব অ্যাপের পুশ-নোটিফিকেশন বন্ধ করে দিন। এতে আপনার স্ক্রিনে নিয়মিত নোটিফিকেশন আসাটা বন্ধ হবে। নিজের ইচ্ছে মতো আপনি ফোনে ঢুকে নোটিফিকেশন জমে থাকলে চেক করতে পারবেন। আপনাকে ফোনের ইচ্ছেয় চলতে হবে না।

২। বন্ধ রাখুন

২। বন্ধ রাখুন

দিনের নির্দিষ্ট সময় ফোন বন্ধ রাখুন। বিশেষ করে রাতে ঘুমোতে যাওয়ার সময় তো বটেই, তার পাশাপাশি আরও কিছু সময় বেছে নিন, যখন আপনি ফোনের ব্যবহার করবেন না। হতে পারে সেটা খাওয়ার সময় বা পড়াশোনা করার সময়।

৩। হাতঘড়ির ব্যবহার

৩। হাতঘড়ির ব্যবহার

ফোন শুধু ফোন নয়। একই সঙ্গে ঘড়িও বটে। কিন্তু যখন সময় দেখার জন্য ফোনের দিকে তাকালেন, তখনই হয়তো চোখে পড়ল কোনও নোটিফিকেশন। ব্যস! আপনিও ফোন ঘাঁটতে শুরু করলেন। এর থেকে বাঁচার রাস্তা একটাই। হাতঘড়ি বা রিস্ট ওয়াচ ব্যবহার করুন। এতে ফোনের দিকে চোখ পড়বে কম।

৪। অপ্রয়োজনী অ্যাপ বাতিল

৪। অপ্রয়োজনী অ্যাপ বাতিল

অ্যাপ দিয়ে ফোন বোঝাই করে রাখবেন না। এতে অপ্রয়োজনেও অতিরিক্ত নোটিফিকেশন আসবে। এবং এমন অনেক অ্যাপ, যা আপনার কোনও কাজেই লাগে না, সেই সব অ্যাপ ঘাঁটার লোভ সামলাতে না পেরে, আপনার সময় বরবাদ হবে। তাই বাদ দিন এই সব অ্যাপ।

৫। পুরনো ফোন

৫। পুরনো ফোন

পুরনো ফোনে ফিরে যেতে পারেন। যদি কলিং এবং মেসেজিং- এইটুকুতেই আপনি শান্ত থাকতে পারেন, এবং স্মার্টফোনে করা বাকি কাজগুলো সময় বার করে ডেস্কটপ বা ল্যাপটপে সামলে নিতে পারেন, তাহল পুরনো যুগর সরল ফোনে ফিরে যাওয়াটা আপনার জন্য আদর্শ রাস্তা। এতে স্মার্টফোনের নেশার হাত থেকে অনেকটাই বাঁচবেন।

৬। অ্যালার্ম ঘড়ি কিনুন

৬। অ্যালার্ম ঘড়ি কিনুন

সকালবেলা ঘুম থেকে ওঠার জন্য স্মার্টফোনে অ্যালার্ম দেওয়ার অভ্যাস অনেকেরই আছে। কিন্তু এতে সকালে উঠেই প্রথম চোখে পড়ে ফোনটি। এবং সকালের প্রথম বেশ কিছুটা সময় এই ফোনের পিছনে চলে যায়। এর থেকে মুক্তি পাওয়ার সহজ রাস্তা, একটা অ্যালার্ম ঘড়ি কিনে নেওয়া। স্মার্টফোনের নেশা কমবে।

৭। সাদা-কালো স্ক্রিন

৭। সাদা-কালো স্ক্রিন

কমবেশি অনেক ফোনেই গ্রেস্কেল বা সাদাকালো ডিসপ্লে মোড থাকে। আফনার স্মার্টফোনটিকে ওই মোডে পাঠিয়ে দিতে পারেন। এতে স্মার্টফোনটি আপনার দৃষ্টি আকর্ষণ করবে কম। তাতে ফোনের ওপর নির্ভরতা কমবে।

স্মার্টফোন নেশার হাত থেকে মুক্তির পথ

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here