মূল জীবন ধারা এই উপায় মেনে চলুন স্বামী-স্ত্রীর ঝগড়া হবে না…

এই উপায় মেনে চলুন স্বামী-স্ত্রীর ঝগড়া হবে না…

এই উপায় মেনে চলুন স্বামী-স্ত্রীর ঝগড়া হবে না...

স্বামী-স্ত্রীর মাঝে কোনো কারণে মনোমালিন্য বা ঝগড়া চলছে? এ নিয়ে মোটেও ভাববেন না। ছয়টি উপায় মেনে চলুন, সমাধান করুন সব ঝগড়ার।

চাওয়া-পাওয়া: দুইজন মানুষ যেমন আলাদা, তেমনি তাঁদের চাওয়া-পাওয়াও আলাদা। কাজেই একজন মানুষ যখন তাঁর চাওয়া অনুযায়ী তাঁর সঙ্গী, স্বামী বা স্ত্রী’র কাছ থেকে তা না পায়, তখনই শুরু হয় দ্বন্দ্ব। অর্থাত্‍, চাওয়া আর পাওয়ার মধ্যে ব্যবধানের কারণেই দ্বন্দ্বের সৃষ্টি।

কথা বলার প্রস্তুতি নিন: যে বিষয়গুলো দুইজনের মধ্যে মেলে না, সেরকম প্রশ্ন প্রথমে লিখে নিন। জানতে চান কার কী বক্তব্য বা সে বা আপনি একে অপরের কাছ থেকে কী আশা করেন ? নিজের প্রত্যাশার কথা ভেবে রাখুন।

অভিযোগ: আজকের যান্ত্রিক জীবনে একটি ‘কমন’ কথা যে ”তুমি আমাকে কখনো সময় দাও না।” এই কথাটি ‘না’ বলে বরং বলুন, ”আমি তোমাকে ‘মিস’ করি।” তাছাড়া নিজে সব কথা না বলে বরং সঙ্গীর কথা শুনুন, তাঁকে বলার সুযোগ দিন।

সমাধান খুঁজুন: ভালোবাসাকে টিকিয়ে রাখার জন্য প্রয়োজন সহনশীলতা ও আপোশ। তাছাড়া প্রতিটি মানুষেরই ভুল-ত্রুটি রয়েছে।ভালোবাসাকে টিকিয়ে রাখার জন্য খুঁজে বের করুন আপনার কোন ব্যবহার আপনার ভালোবাসার মানুষটির পছন্দ নয় বা কী তাঁকে কষ্ট দেয়। আর তা শুধুমাত্র কথা বলে বা আলোচনার মধ্য দিয়ে খুঁজে বের করা সম্ভব.

ক্ষমা করুন: পুরনো ঝগড়া টেনে না এনে বরং ক্ষমা করে দিন। ভালোবাসার সম্পর্কে একে অপরকে ‘ক্ষমা’ করার মনোভাব খুবই ‘জরুরি’। এমনকি সে সম্পর্ক বহুদিনের বিবাহিত জীবন হলেও। একে অপরকে জড়িয়ে ধরুন কিংবা কোথাও ঘুরতে যান, যা এক্ষেত্রে খুবই উপকারী।

নতুন প্ল্যান করুন: দুইজনের সম্পর্কের মধ্য যদি বেসিক জিনিসগুলো মিলে যায়, অর্থাত্‍, অর্থ এবং চরিত্র- তাহলে জীবনে সুখী হতে তেমন অসুবিধা হওয়ার কথা নয়। তাই ছোটখাটো বিষয়ে করা ঝগড়াকে বড় করে না দেখে আগামীদিনের জন্য প্ল্যান করুন। তথ্যগুলো জানিয়েছেন পরিবার বিষয়ক পরামর্শদাতা ও লেখক উরজুল ভার্ওয়ারজিনেক।

এই উপায় মেনে চলুন স্বামী-স্ত্রীর ঝগড়া হবে না…

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here