মূল ভ্রমণ বাংলাদেশের পর্যটন কেন্দ্র শ্রীমঙ্গল টি রিসোর্ট

শ্রীমঙ্গল টি রিসোর্ট

শ্রীমঙ্গল শহর থেকে ৪ কিলোমিটার দূরে শ্রীমঙ্গল-কমলগঞ্জ সড়কের পাশে ভাড়াউড়া চা বাগান সংলগ্ন ২৫.৮৩ একর জায়গার ওপর এই টি রিসোর্ট অবস্থিত। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ভরপুর কয়েকটি টিলা ও চা বাগান নিয়ে এই রিসোর্ট তৈরী হয়েছে। মূলত পুরানো একটি বৃটিশ বাংলোকে রিসোর্টে রূপান্তরিত করা হয়েছে।

অত্যন্ত সুরক্ষিত এই রিসোর্টে ১টি অফিস ভবন, ২টি ভিআইপি লাউঞ্জ, ১৪টি বাংলো, ৯টি স্টাফ হাউজ, ৫০টি শ্রমিক সেইড, ২টি পাম্প হাউজ, ১টি পানির ট্যাংক, ১টি জেনারেটার হাউজ ও ১টি জ্বালানি স্টোরসহ একটি বিদেশী রেস্ট হাউজের জন্য যা যা প্রয়োজন তার সব সুযোগ-সুবিধা বিদ্যমান রয়েছে।

পর্যটকদের জন্য সুইমিং পুলসহ ১টি অত্যাধুনিক টেনিস কোর্ট ও একটি বেডমিন্টন কোর্টও রয়েছে। এছাড়াও প্রতিটি কটেজে উন্নত মানের ড্রইং, ডাইনিং, কিচেন, স্টোর রুম, ফ্রিজ রুম, বাথরুম সহ ঠান্ডা ও গরম জলের ব্যবস্থা রয়েছে।

বড়লেখার মাধবকুন্ড সহ এই এলাকার অনেক দর্শনীয় স্থানই এই রিসোর্টে অবস্থান করেই দেখা যাবে। তাছাড়া আশ পাশের চা বাগান তো আছেই।

বাংলাদেশ চা বোর্ডের ব্যবস্থাপনায় সম্পূর্ণ বাণিজ্যিকভাবে পরিচালিত টি-রিসোর্টে ১৪টি কটেজ রয়েছে। ১২টি কটেজ ২ বেড রুমের এবং দুটি কটেজ ৩ বেড রুমের। কটেজের ভাড়া যথাক্রমে ৪০২৫ টাকা ও ৫৭৭৫ টাকা। দেশ-বিদেশের পর্যটকরা মৌলভীবাজার জেলার লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান সহ বিভিন্ন দর্শনীয় স্থান দেখতে এসে এই রিসোর্টের কটেজগুলোতে ভাড়ায় থাকেন।

টি রিসোর্টের বুকিং আগে দিয়ে আপনি সহজেই এখানে থাকতে পারেন। এ এলাকাটি আপনাকে মুগ্ধ করবেই।

রিসোর্টের নিজস্ব গাড়ি শহর থেকে আপনাকে নিয়ে যাবে। যোগাযোগ : অরুণ বাবু-০১৭১২৯১৬০০১, ০১৭১২০৭১৫০২,

এ এলাকাটি আপনাকে মুগ্ধ করবেই।ঝুম ঝুম বৃষ্টির দিনে কিংবা কোনও শীতের সন্ধ্যায় হালকা কুয়াশায় ঘেরা চা বাগান, সকালের কিংবা নিস্তব্ধ দুপুরের চা বাগান দেখার সুযোগ এখনো যাদের হয়নি, তারা ঘুরে আসতে পারেন চায়ের দেশের রাজধানী শ্রীমঙ্গলের টি রিসোর্ট অ্যান্ড মিউজিয়ামটি থেকে।

শ্রীমঙ্গল টি রিসোর্ট

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here